Placeholder canvas

Placeholder canvas
HomeআজকেAajke | আপনার আধার কার্ড নিষ্ক্রিয় করা হতেই পারে
Aajke

Aajke | আপনার আধার কার্ড নিষ্ক্রিয় করা হতেই পারে

Follow Us :

ন ছিল, ও আমরা বলে দিচ্ছি ঠিক হয়ে যাবে। কিছু ক্ষেত্রে ঠিক হয়ে গেছেও কিন্তু তা যে সাময়িক তাও জানানো হয়েছে। এই একই কাণ্ড আমরা অসমে দেখেছিলাম, বাংলাদেশ থেকে উদ্বাস্তু হিসেবে আসা মুসলমান তাড়ানোর উদ্দেশ্যে যা শুরু হয়েছিল তাতে শেষমেশ মুসলমানদের দেড় লক্ষের তুলনায় অনেক বেশি ১২ লক্ষ হিন্দুর নাম এসেছিল, যারা নাকি সন্দেহভাজন নাগরিক। তাদের বেশ কিছু লোককে ডিটেনশন সেন্টারে পাঠানোও হয়েছিল, বহু লোকের পরিচয়পত্র বাতিল করা হয়েছিল। আজ এই প্রক্রিয়া শুরু হবে, কেবল শুরু হবে ঘোষণার পরেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে হাজার খানেক আধার কার্ড বাতিল হয়ে গেল। পুরোটা শুনুন, এটা শোনা খুব জরুরি। সেই নাগরিকত্ব বিল আনার সময়েই অমিত শাহকে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে এই যে এনপিআর আনা হচ্ছে, সেটা দিয়ে ঘুরপথে এনআরসি করা হবে না তো? কারণ এরই মধ্যে বাংলা এবং কেরালা এনপিআর করবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে। এনপিআরএর জন্য ক্যাবিনেট ৯০০০ কোটি টাকা বরাদ্দও করে দিয়েছে। অমিত শাহ তখনও জানিয়েছিলেন যে না না এনপিআর-এর সঙ্গে এনআরসি-র কোনও সম্পর্ক নেই, এনআরসি তো লুকিয়ে করা হবে না, এখন এনআরসি নিয়ে আমরা কিছু ভাবছি না। ওই খানেই গন্ডগোল, এখন, এখন আমরা কিছু ভাবছি না। আর ভাবার আগেই আধার কার্ড বাতিল হয়ে যাচ্ছে। আসলে আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মিথ্যেই বলেছেন। বিরাট মিথ্যে। একটু Home Ministry Report 2018-2019 খুলে দেখুন, ২৬২ পাতা এবং ২৭৩ পাতায় বলা আছে, NPR is the first step towards implementation of NRC, পরিষ্কার বলা আছে। এনপিআর হল এনআরসি-র দিকে প্রথম পদক্ষেপ। অমিত শাহজিরা লুকিয়ে এই কাজটা করতে চাইছিলেন কেন? কেবল কি এক জায়গায়? সংসদে অন্তত ৯ বার বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে স্বরাষ্ট্র দফতরের মন্ত্রীরা পরিষ্কার জানিয়েছেন এনপিআর হল এনআরসি-র প্রথম পদক্ষেপ। জুলাই ৮, সংসদে কিরণ রিজিজু কংগ্রেস এমপির প্রশ্নের জবাবে বলছেন, The scheme of NPR has been reviewed and it has been decided that NPR should be completed and taken to its logical conclusion, which is creation of NRC by verification of citizenship of every usual residence in the NPR.

১৫ জুলাই, ২২ জুলাই, ২৩ জুলাই সংসদে একই বয়ান দিয়েছে স্বরাষ্ট্র দফতর। নভেম্বর ২৬ ২০১৪তে বলা হল, NRC is the first step towards creation of NRIC by verifying the citizenship of every usual residence. ২১ এপ্রিল ২০১৫, ২৮ জুলাই ২০১৫ আবার এই একই বিবৃতি দেওয়া হয়েছিল। নভেম্বর ১৬, ২০১৬তে কিরণ রিজিজু স্বরাষ্ট্র দফতরের প্রতিমন্ত্রী বলেছিলেন, The government as approved the preparation of NPR comprising details of usual residence in the country. The preparation of population register is a part of preparation of NRIC under provision of the Citizenship Act 1955 read with Citizenship Ammendment Rule 2003. খুব পরিষ্কার বলা হচ্ছে যে এনপিআর হল এনআরসি-র প্রথম ধাপ। এবং এই প্রক্রিয়াতে আপনার নাম ভোটার তালিকা থেকে, আধার কার্ডের অনুমোদিত তালিকা থেকে বাদ পড়তেই পারে। সেটাই বিষয় আজকে।

আরও পড়ুন: Aajke | পাগড়ি পরলেই খালিস্তানি?

দর্শকদের আর একটু খুলে বলি কেমন করে এনআরসি লাগু করার কথা সরকার ভাবছেন। এনপিআর-এ এর আগে জানতে চাওয়া হত আপনার নাম, ঠিকানা, কী করেন, শিক্ষাগত যোগ্যতা ইত্যাদি ১৬টা প্রশ্ন, যার সবটাই আপনার সম্বন্ধে। এবার সেটাকে পরিবর্তন করা হয়েছে, আপনার মোবাইল নম্বর, পাসপোর্ট আছে কি না, থাকলে নম্বর, আধার নম্বর (ইচ্ছে হলে দেবেন) প্যান নম্বর এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যা এবার চাওয়া হচ্ছে তা হল আপনার বাবা মার জন্ম তারিখ এবং তাঁরা কোথায় জন্মেছিলেন সেটা জানাতে হবে।
এবার প্রশ্ন এটা থেকে এনআরসিতে কী করে যাওয়া হবে।

খুব সোজা, এই তথ্যগুলো কিছু মানুষ বসে বিশ্লেষণ করবেন, এবং এর মধ্যে থেকে Doubtful voter, সন্দেহজনক ভোটারের তালিকা তৈরি হবে। নানা রকমের গন্ডগোল বা দুর্নীতি সেখানে মনে হতে পারে। ১) বেশ কিছু মানুষের কাছে প্রয়োজনীয় কাগজ নেই, গরিব মানুষ, পড়াশুনো জানে না, তারা এই তালিকায় পড়বে। ২) যেভাবে এক শ্রেণির আমলা এক শ্রেণির পুলিশ, বেশ কিছু মানুষ সংখ্যালঘুদের বিরোধী তারা এই সুযোগ নিতে পারেন। ৩) প্রতিবাদী মানুষ, কথা বলা মানুষদের মুখ বন্ধ করার ব্যবস্থা হতেই পারে।
সব মিলিয়ে ডি ভোটার লিস্ট, মানে ডাউটফুল ভোটার লিস্ট তৈরি হল। এবার আপনার কাছ থেকে কাগজ চাওয়া হবে, তার ভিত্তিতে এনআরসি তৈরি হবে। এরপর আপনি আর নাগরিক নন, আপনার আধার কার্ড নেই, আপনি আমাদের নতুন নাগরিকত্ব আইন মেনে আবেদন করুন। আপনি যদি প্রমাণ করতে পারেন যে সত্যিই ধর্মীয় অত্যাচার ইত্যাদির কারণেই আপনাকে এদেশে চলে আসতে হয়েছিল, তাহলে আপনি নাগরিকত্ব ফেরত পাবেন। ততদিন আপনার চাকরির কী হবে? আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের কী হবে? কেউ জানে না, সে নিয়ে একটা কথাও আমাদের টাচ মি নট খোকাবাবু বা সুকান্ত মজুমদার বলছেন না। আমরা সেই প্রশ্নই করেছিলাম আমাদের দর্শকদের, এনআরসি প্রক্রিয়া শুরু করার আগেই আধার কার্ড বাতিলের খবর এসেছে, কেন্দ্র সরকার বা বিজেপি কি নাগরিকত্ব নিয়ে নতুন করে আগুন লাগানোর চেষ্টা করছে? যাঁরা দেশের নাগরিক, ভোট দিচ্ছেন, চাকরি করছেন, বসবাস করছেন, আধার কার্ড আছে ভোটার কার্ড আছে, তাদের আবার নতুন করে নাগরিকত্বের প্রমাণ কেন দিতে হবে? শুনুন তাঁরা কী বলেছেন।

এর ফলে কী হতে পারে? দুটো ফলাফল নিয়ে আমরা চিন্তিত। ১) সত্যি করেই কাগজ নেই, বা ইচ্ছে করে যাদের হ্যারাস করার জন্য এই লিস্টে রাখা হল, তাদের নাগরিক অধিকার ছিনিয়ে নেওয়া হবে, তারা সরকারি সুযোগ সুবিধা, আইনের সুরক্ষা দাবি করতে পারবে না, কারণ তারা রাষ্ট্রহীন মানুষ। এত মানুষ থাকবেন কোথায়? খাবেন কী? ২) যে কোনও তথ্য সঙ্কলনের একটা স্বাভাবিক ভ্রান্তির সম্ভাবনা statistical error থাকতেই পারে। তা এসব ক্ষেত্রে আরও বেশি কারণ প্রক্রিয়াটা ম্যানুয়াল এবং ব্যক্তি সিদ্ধান্তের উপর অনেকটা নির্ভরশীল। সেই এরর বা ভ্রান্তি যদি ৩ শতাংশও হয় তাহলে ১৩০ কোটি জনসংখ্যার ৪ কোটি মানুষ বিনা দোষে এনআরসি লিস্টে চলে যাবেন। আপনার আধার কার্ড বাতিল হবে, আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ হবে, আপনার চাকরি থাকবে না। ভেবে দেখেছেন কোন সর্বনাশের দিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে আমাদের।

RELATED ARTICLES

Most Popular