Placeholder canvas

Placeholder canvas
HomeScrollকেন্দ্রীয় বাজেটে পূর্বাঞ্চলের দিকে বিশেষ জোর নির্মলার

কেন্দ্রীয় বাজেটে পূর্বাঞ্চলের দিকে বিশেষ জোর নির্মলার

লক্ষ্য কি লোকসভা ভোট, প্রশ্ন রাজনৈতিক মহলের

Follow Us :

নয়াদিল্লি: কেন্দ্র্রের অন্তর্বর্তী বাজেট ভাষণে অর্থমন্ত্রী পূর্বাঞ্চলের দিকে বিশেষ জোর দেওয়ার কথা বলেছেন বৃহস্পতিবার। তাঁর কথায়, আমরা দেশের পূর্বাঞ্চলকে বৃদ্ধির আওতায় আনতে চাই। রাজনীতির কারবারিরা মনে করছেন, আসন্ন লোকসভা ভোটের দিকে তাকিয়েই বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব পূর্বাঞ্চলের দিকে বিশেষ নজর দেওয়ার কথা বলছেন। বিজেপির সেই রাজনৈতিক ভাষ্যই উঠে এসেছে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের বাজেট ভাষণে।

বিশ্লেষকদের মতে, পূর্বাঞ্চল বলতে নির্মলা পূর্ব এবং উত্তর পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলিকে বোঝাতে চেয়েছেন। বিজেপির সাংগঠনিক মানচিত্রে পূর্বক্ষেত্রে রয়েছে বাংলা, বিহার, ঝাড়খণ্ড, ওড়িশা, আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ। এছাড়া আছে ত্রিপুরা, অসম, সিকিম-সহ উত্তর পূর্বের একাধিক ছোট রাজ্য। লোকসভা ভোটের আগে এবার বিজেপির স্লোগান হল, অব কি বার চারশো পার। এই চারশো পার করার জন্য উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলি থেকে বেশি লোকসভা আসন দরকার বিজেপির। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে উত্তর, পশ্চিম এবং মধ্য ভারতে প্রচুর আসন পেয়েছে বিজেপি। এই রাজ্যগুলি থেকে আর নতুন করে বিজেপির কিছু পাওয়ার নেই। এবার তাদের লক্ষ্য পূর্বাঞ্চল এবং দক্ষিণ ভারত।

আরও পড়ুন: আইসক্রিম স্টিক বাজেট, খেতে মধু, হাতে কাঠি

দক্ষিণে কোনও রাজ্যই বিজেপির দখলে নেই। গত লোকসভা ভোটে উত্তর পূর্বের বিভিন্ন রাজ্য থেকে ভালো সংখ্যক আসন পেলেও ওড়িশা এবং বাংলায় বিজেপি খুব বেশি আসন পায়নি। গতবার বাংলার ৪২টির মধ্যে ১৮টি আসন পেয়েছিল বিজেপি। এটা তাদের প্রত্যাশার মধ্যে ছিল না। এবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বাংলার জন্য ৩৫টি লোকসভা আসনের লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দিয়েছেন। ওড়িশায় ২০টির মধ্যে বিজেপি পেয়েছিল আটটি আসন। এবার এই দুই রাজ্যও বিজেপির নজরে রয়েছে।

এদিকে গত কয়েক দিনের মধ্যে পূবের দুই রাজ্য বিহার এবং ঝাড়খণ্ডে রাজনৈতিক পট পরিবর্তন হয়ে গিয়েছে। বিহারে জেডিইউ মহাগঠবন্ধন ছেড়ে আবার এনডিএ জোটে ফিরে গিয়েছে। তারপরই ইডি বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী আরজেডি নেতা লালুপ্রসাদ যাদব এবং তাঁর ছেলে তথা বিহার সরকারের প্রাক্তন উপ মুখ্যমন্ত্রী তেজস্বী যাদবকে ইডি তলব করেছে। তাঁদের দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। আবার ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন ইস্তফা দিয়েছেন। বুধবার রাতেই ইডি তাঁকে গ্রেফতার করেছে একটি জমি মামলার সূত্রে। এই দুই রাজ্যেই রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের পিছনে বিজেপির হাত রয়েছে বলে বিরোধীদের অভিযোগ। বিহার, ঝাড়খণ্ডও বিজেপির পাখির চোখ লোকসভা ভোটে।

দেখুন আরও অন্যান্য খবর: 

RELATED ARTICLES

Most Popular

Recent Comments