Placeholder canvas
Homeরাজ্যকে ভাঙল রাহুলের গাড়ির কাচ! মুখ খুললেন মমতা

কে ভাঙল রাহুলের গাড়ির কাচ! মুখ খুললেন মমতা

রাহুল গান্ধীর গাড়ির কাচ ভেঙে যাওয়ার ঘটনা নিয়ে মুখ খুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

Follow Us :

মালদহ: বুধবার সকালে ‘ভারত জোড়ো ন্যায় যাত্রা’ (Bharat Jodo Nyay Yatra) কর্মসূচি নিয়ে বিহার থেকে বাংলায় প্রবেশ করেন রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi)। সেখানেই দেখা যায়, কংগ্রেস নেতার গাড়ির পিছনের কাচ ভাঙা। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী (Adhir Ranjan Chowdhury)-ও ছিলেন ওই গাড়িতেই। ঘটনাটি নিয়ে ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করেন তিনি। অধীর বলেন, কে করেছে বুঝে নিন। পাশাপাশি, তিনি অভিযোগ করেন রাহুলের কর্মসূচি নিয়ে শুরু থেকেই বাংলার সরকার তাঁদের সঙ্গে অসহযোগিতা করছে। বেলা যত গড়িয়েছে, কাচ ভাঙার ঘটনা নিয়ে নানান মন্তব্য উঠে এসেছে কংগ্রেসের তরফে।

অন্যদিকে, একদিকে যখন ‘ভারত জোড়ো ন্যায় যাত্রা’-য় রাহুল গান্ধীর গাড়ির কাচ ভেঙে যাওয়ার ঘটনা নিয়ে শোরগোল চলছে তখন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) মালদহ থেকে মুর্শিদাবাদের পথে। বহরমপুরে পৌঁছেই রাহুলের গাড়ির কাচ ভেঙে যাওয়ার ঘটনা নিয়ে মন্তব্য করেন তিনি। মমতা বলেন, হেলিকপ্টারে আসতে আসতে আমি খবর পেলাম। কংগ্রেসের এক নেতা নাকি… একটু থেমে তৃণমূল নেত্রী আবার বলেন, রাহুলের নামটা বলেই দিই। ও আমার চেয়ে বয়সে ছোট। ওর গাড়ির কাচ ভেঙে দেওয়া হয়েছে। “আমি এ সব পছন্দ করি না।”- বলে মন্তব্য করেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। তিনি আরও বলেন, তবে পরে শুনলাম, ওটা বিহারের কাটিহারের ঘটনা। মমতা জানান, গাড়ির কাচ ভাঙা অবস্থায় বিহার থেকে রাহুলের গাড়ি বাংলায় ঢুকেছে। সুতরাং এর সঙ্গে বাংলার কেউ জড়িত নন। তৃণমূল নেত্রী বলেন, বিহারে সবে নীতীশ কুমারের দল বিজেপির দিকে ঝুঁকছে। ওরা এক হচ্ছে। ওদের রাগ আছে। তাই এ সব ঘটতে পারে।

আরও পড়ুন: জোট হলেও বহরমপুর কংগ্রেসকে ছাড়া হত না, বোঝালেন মমতা

প্রসঙ্গত, ২৪-এর লোকসভা নির্বাচনকে লক্ষ্য রেখে তৈরি ইন্ডিয়া জোটের মূল উদ্যোক্তা নীতীশ কুমার (Nitish Kumar) রাতারাতি মহাগঠবন্ধন ছেড়ে হাত মিলিয়েছেন এনডিএ (NDA)-এর সঙ্গে। নীতীশের ডিগবাজি প্রসঙ্গে, রাহুলের অবশ্য সাফ কথা ‘নীতীশজিকে প্রয়োজন নেই’। বিহারের মাটিতে দাঁড়িয়ে মঙ্গলবার রাহুল গান্ধী বলেন, ‘একটু চাপ পড়তেই একজন ইউটার্ন নিয়ে ফেললেন।’ প্রশ্ন তুললেন, ‘জানেন নীতীশ কুমার কেন ফেঁসে গেলেন? আমি ওঁকে সোজাসুজি বলেছিলাম, বিহারে জাতিভিত্তিক জনগণনা করতেই হবে আপনাকে। RJD-র সঙ্গে মিলে আমরা নীতীশজিকে এই সার্ভে করানোর উপর জোর দিয়েছিলাম। আর এতেই BJP ভয় পেয়ে গেল। ওরা চায় না দেশে জাতিভিত্তিক জনগণনা হোক। নীতীশজি ফেঁসে গেলেন আর BJP তাঁকে ব্যাকডোর দিয়ে যোগাযোগ করে টোপ দেওয়া শুরু করল। মানুষকে সামাজিক অধিকার ফিরিয়ে দেওয়া আমাদের গঠবন্ধনের অন্যতম মূল উদ্দেশ্য। এই কর্তব্য পালনে আমরা কখনও পিছপা হব না। আমাদের নীতীশ কুমারকে প্রয়োজন নেই। বিহারের পূর্ণিয়ায় ভারত জোড়ো ন্যায় যাত্রা থেকে রাহুল বলেন, মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য আমাদের জোট লড়বে। এখানে নীতীশ কুমারের দরকার পড়বে না।

আরও খবর দেখুন

RELATED ARTICLES

Most Popular

Recent Comments